নানা কারণে ঘরে বিভিন্ন ধরণের গন্ধ তৈরি হতে পারে। রান্নাঘর, পোশাক, বাথরুম, ময়লার ঝুড়ি, ব্যবহার্য জিনিসপাতি, ভেজা কাপড় সহ অনেক কিছু থেকেই। সবকিছুর গন্ধ মিলেই দুর্গন্ধের সৃষ্টি হয়। ঘরের এই দুর্গন্ধ পরিবারের মানুষজনের জন্যে যেমন অস্বস্তির তেমনি বাসায় হঠাৎ আসা মেহমান বা কোন অথিতির সামনে বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়। তাই চলুন আজ জেনে নেই ঘরের নানান দুর্গন্ধ দূর করার সহজ ও ঘরোয়া কিছু উপায়।

প্লাস্টিকের বাটির দুর্গন্ধ
প্লাস্টিকের বাটি যেখানে রাখা হয় তার গন্ধটা শুষে ন্যায়। ধুয়ে নিলেও এই গন্ধ অনেক সময় যেতে চায়না। খালি প্লাস্টিকের বাটিতে খবরের কাগজ ভরে রাখুন দেখবেন বাটিতে আর দুর্গন্ধ হবেনা।

রেফ্রিজারেটর
যদি ফ্রিজে আলাদা আলাদা প্যাকেটে খাবার রাখার পরেও দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয় তাহলে ফ্রিজের ভেতরে ১ টুকরো পাউরুটি রাখুন। দুর্গন্ধ দূর করার জন্য লেবুর অর্ধেক অংশ কেটে রাখতে পারেন ফ্রিজে।

বন্ধ ঘর ও পোষা প্রাণীর দুর্গন্ধ
ঘরে পোষা প্রাণী রাখলে কার্পেটে দুর্গন্ধ হয় আর এই দুর্গন্ধ দূর করতে কার্পেটের উপর ভিনেগার স্প্রে করুন। যদি বিরক্তিকর দুর্গন্ধ পোষা প্রাণীর লিটার বক্স থেকে আসে তাহলে সেখানে কিছু শুকনো চা পাতা দিয়ে রাখুন।

জুতা
জুতার দুর্গন্ধ দূর করতে জুতার ভেতরে লেবু অথবা কমলার খোসা রেখে দিন। খবরের কাগজ ছিঁড়ে জুতার ভেতরে দিয়ে রাখলেও দুর্গন্ধ দূর হয়।

আলমারি
আর্দ্রতার কারণেই কাপড়ে দুর্গন্ধ হয়। তাই আলমারির ভেতরে কিছু চক ঝুলিয়ে দিন। চকগুলো আলমারির ভেতরের আর্দ্রতা শোষণ করে নিবে।

পায়ের দুর্গন্ধ
সাধারণত বগলে ও পায়ের তলায় ঘাম ও ব্যাকটেরিয়ার কারণে দুর্গন্ধ হয়। বেকিংসোডা প্রাকৃতিক ডিওডোরেন্ট হিসেবেও কাজ করে। বগলে ও পায়ের তলায় বেকিং সোডা লাগালে দুর্গন্ধ মুক্ত হওয়া যায়।

রসুন বা পেঁয়াজের গন্ধ
পেঁয়াজ বা রসুন কাটার পর হাতে গন্ধ থেকে যায় যা সাবান দিয়ে ধুলেও যায়না। কিন্তু হাতে স্টেইনলেস ষ্টীলের চামচ ঘষলে খুব সহজেই দূর হয়ে যায় এই গন্ধ।

ওভেন
ওভেন গরম থাকা অবস্থায় এর ভেতরে কয়েকটি কমলার খোসা দিয়ে রাখলে দুর্গন্ধ দূর হয়। দ্রুত এই গন্ধ থেকে রেহাই পেতে একটি লেবুর অর্ধেক অংশ নিয়ে ওভেনের ভেতরে ঘষুন।

কাঠের চপিং বোর্ডের গন্ধ
কাঠের চপিং বোর্ডে মাছ বা মাংস কাটার পরে গন্ধ থেকে যেতে পারে। এই গন্ধ দূর করার জন্য লেবুর রসের সাথে লবণ বা বেকিং সোডা মিশিয়ে বোর্ডের উপর ঘষুন দেখবেন গন্ধ দূর হয়ে গেছে।

ডাস্টবিন
ময়লার বিনের ভেতরে বেকিং সোডা বা সাইট্রাস ফলের টুকরো দিয়ে রাখলে দুর্গন্ধ দূর হয়।

বাথরুম
বাথরুমের অপ্রীতিকর গন্ধ দূর করার জন্য একটি কটন বলে কয়েকফোঁটা গোলাপ ও সাইট্রাস এসেনশিয়াল অয়েল দিয়ে বাথরুমের কোন একটি স্থানে রেখে দিন। কমোডের দুর্গন্ধ দূর করতে এক কাপ ভিনেগার ঢেলে দিন এতে, পাঁচ মিনিট ওভাবেই থাকতে দিন। এরপর ফ্লাশ করে দিন।

বিছানা
রাতের ভালো ঘুমের জন্য একটি কটন বলে ল্যাভেন্ডার অয়েল লাগিয়ে নিয়ে বালিশের কভারের ভেতরে দিয়ে রাখুন। এর মৃদু ও শান্ত সুগন্ধে ঘুম ভালো হবে।

সিঙ্ক
সিঙ্কে যদি খাবারের গন্ধ থেকে যায় তাহলে সিঙ্কের মধ্যে লেবু বা কমলার খোসা দিয়ে রাখলে দুর্গন্ধ দূর হবে। এছাড়াও দুর্গন্ধ দূর করতে বেকিং সোডা পানিতে গুলিয়ে ঢেলে দিতে পারেন সিঙ্কে।

রান্নাঘর
কয়েকটুকরো আপেলের সাথে দারুচিনি দিয়ে কিছুক্ষণ ফুটান। মসলার সুগন্ধে সারা ঘর ভরে যাবে। রান্নাঘরের সিঙ্কে কখনোই ফেলবেন না তরিতরকারির খোসা, বিশেষ করে আলু বা পিঁয়াজের খোসা। এগুলো ভীষণ বাজে দুর্গন্ধ তৈরি করতে পারে।

ময়লার ঝুড়ির দুর্গন্ধ
ময়লার ঝুড়ি থেকেও ভীষণ গন্ধ হতে পারে। কুসুম গরম পানি এবং সাদা ভিনেগারের একটি মিশ্রণ দিয়ে এটাকে ধুয়ে ফেলুন, গন্ধ চলে যাবে একদম। যদি ময়লার ঝুড়িতে গন্ধ হয়েছে অথচ এখনই তা খালি করতে পারছেন না এমন অবস্থা হয়, তাহলে এর ওপরে কিছু কফি গুঁড়ো দিয়ে দিন, কিছুটা কমে যাবে গন্ধ।

লিভিং রুম
লিভিং রুমে ধুপকাঠি বা এসেনশিয়াল অয়েল রাখলে ঘরে সুগন্ধ ছড়াবে। এছাড়াও লিভিং রুমে ফুলের টবে তাজা ফুল রাখতে পারেন।

বারান্দা
বারান্দায় রাখা ফুলের টবগুলো শুধু সৌন্দর্যই বৃদ্ধি করেনা বাতাসকে বিশুদ্ধ করে এবং সুবাস ছড়ায়। বারান্দার টবে ল্যাভেন্ডার বা গাঁদাফুলের গাছ লাগাতে পারেন।

ঘামের দুর্গন্ধ
কাপড় থেকে ঘামের দুর্গন্ধ দূর করার জন্যে কাপড় কাচার সোডা কিছুটা ব্যবহার করতে পারেন ধোয়ার সময়।

সিগারেটের দুর্গন্ধ
একটা ছোট তোয়ালে সাদা ভিনেগারে ভিজিয়ে চিপে নিয়ে হাতে নিয়ে ঘরময় হেঁটে আসুন, মশা তাড়াতে যেমনটা করা হয়। এটা সহজেই ধূমপানের গন্ধ দূর করবে সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে।

সাধারণ দুর্গন্ধ
বিশেষ কারণ ছাড়াই ঘরে দুর্গন্ধ হতে পারে। এই দুর্গন্ধ দূর করতে তৈরি করেনে নিজের মতো স্প্রে। তিন ভাগ পানি, এক ভাগ রাবিং স্পিরিট আর ১০-২০ ফোঁটা নিজের পছন্দের এসেনশিয়াল অয়েল দিয়ে বানিয়েন স্প্রে। বাথরুম, বেডরুম বা ঘরের যে কোন জায়গায় ব্যবহার করতে পারেন।

সূত্রঃ ইন্টারনেট ও প্রিয় লাইফ

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *